স্বাস্থ্য সংবাদ :  টমেটোর গুণাগুণ প্রায় সকলেই জানেন। কিন্তু, এই গুণগুলোর পাশাপাশি টমেটো যে মেদ ঝরাতেও সাহায্য করে তা কি জনেন?

বিশেষজ্ঞরা বলেন, কাঁচা টমেটো দিনে ৪টি থেকে ৫টি খাদ্য তালিকায় রাখলে শরীরে কোলেসিসটোকিনিন নামে এক ধরনের হরমোন নিঃসৃত হয় যা পেটের এবং ইনটেস্টাইনের মধ্যে যে ভালভ রয়েছে তা সংকুচিত করে দেয়। ফলে পেট ভরা থাকে, খিদে কম পায়। আর তাতে ওজন বাড়ার সম্ভাবনাও থাকে না।

এছাড়াও টমেটোর মধ্যে রয়েছে আরও বিশেষ কিছু গুণাগুণ, আসুন জেনে নেওয়া যাক সেই গুণগুলি কী কী-

১. ইনসুলিন নিঃসরণ কমে এবং ওজন বৃদ্ধির হরমোন নিয়ন্ত্রণে থাকে

খাদ্য হিসেবে এটা অত্যন্ত কম ক্যালরিযুক্ত। একটা ছোট টমেটোতে ক্যালরির মাত্রা থাকে মাত্র ১৬। এছাড়া, টমেটোতে থাকে প্রাকৃতিক শর্করা। যা ‘গ্লাইসেমিক ইন্ডেক্স’ সমৃদ্ধ। এটি রক্তের শর্করার পরিমাণ ঠিক রাখে। ফলে ইনসুলিন নিঃসরণ কমে যায় এবং যে হরমোন চর্বি সঞ্চয় ও ওজন বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে সেটিও নিয়ন্ত্রিত থাকে।

২. ডায়াবেটিস এবং কিডনির সমস্যা রোধ করে

ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা ছাড়াও শরীরের অন্যান্য বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে টমেটো বেশ উপকারি। যেমন ডায়াবেটিস বা কিডনির সমস্যা রুখতেও এটি সাহায্য করে। এছাড়াও রোগ প্রতিরোধে টমেটোর আরও বেশ কয়েকটি গুণ বর্তমান।

৩. হাড় ভালো রাখে

টমেটোতে পর্যাপ্ত পরিমাণে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন কে রয়েছে। এগুলো হাড়ের টিস্যু ঠিকঠাক রাখতে ও ছোটখাটো হাড় সংক্রান্ত সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে।

৪. দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়

চোখের দৃষ্টি উন্নত করতে টমেটোর ভূমিকা অপরিসীম। তাই রোজ খাদ্যতালিকায় টমেটো থাকলে তা আপনার চোখের জন্য উপকারি।

৫. ধূমপানের ক্ষতি কমায়

আবার ধূমপানের ফলে শরীরে যে ক্ষতি হয় তার প্রভাব কমাতে পারে টমেটো। এতে বিদ্যমান রয়েছে কোমেরিক অ্যাসিড ও ক্লোরোজেনিক অ্যাসিড। যা শরীরে ধূমপান থেকে ক্ষতি কমাতে বিরাট সাহায্য করে।

৬. ক্ষতিকর রাসায়নিক নিয়ন্ত্রণে রাখে

এছাড়াও, টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, সি ও বিটা ক্যারোটিন রয়েছে। এগুলো অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট হিসেবে কাজ করে, রক্তের ক্ষতিকারক রাসায়নিকের উপস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখে। টমেটো যত লাল হবে তত বিটা ক্যারোটিনের পরিমাণ বেশি থাকবে। তবে রান্নার ফলে নষ্ট হয়ে যায় টমেটোর মধ্যে থাকা ভিটামিন সি।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY