জাতীয় সংবাদ :  আর্থসামাজিক দিক থেকে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘দৃঢ় ও সাহসী’ নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বলেছেন, তার নেতৃত্বের কারণেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে।

সোমবার ভারতের নয়া দিল্লিতে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবনে সফরকারী আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে ৩০ মিনিটের বৈঠকে মোদি এই প্রশংসা করেন।

দেশটিতে বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়েছে।

ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপির আমন্ত্রণে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে দলের ২০ নেতার একটি দল এই মুহূর্তে নয়া দিল্লি অবস্থান করছেন। সফরের দ্বিতীয় দিন তারা দেখা করেন মোদির সঙ্গে।

এই সাক্ষাতের সময় ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা পরামর্শক অজিত দোভাল, পররাষ্ট্র সচিব বিজয় কে গোখলে, যুগ্ম সচিব (বাংলাদেশ ও মিয়ানমার) স্পিরিয়া রঙ্গনাথ এবং ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রাভিশ কুমার উপস্থিত ছিলেন।

আগামী জাতীয় নির্বাচনের বছরে আওয়ামী লীগের এই সফরকে ঘিরে বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে দৃষ্টি রয়েছে। বিএনপি-জামায়াতরে সহিংস আন্দোলনের মুখে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির সংসদ নির্বাচনের আগে পশ্চিমা বিভিন্ন দেশ যখন সব দলের অংশগ্রহণে ভোটের পক্ষে অবস্থান নিয়েছিল, তখন ভারতের অবস্থান ছিল সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা রক্ষায়।

আগামী জাতীয় নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে কি না, এই বিষয়টি এখনও নিশ্চিত নয়। আর এই অবস্থায় ভোটের মাসছয়েক আগে এই সফর নিয়ে এরই মধ্যে রাজনৈতিক মহলে আলোচনা শুরু হয়ে গেছে।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে ভারতের প্রভাব নিয়ে নানা আলোচনা আছে। সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রমাণ না থাকলেও রাজনৈতিক অঙ্গনে এই বিশ্বাস রয়েছে যে, ভারতের চাওয়া না চাওয়ার গুরুত্ব রয়েছে।

যদিও সফরের আগের দিন শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ইন্ডিয়ান ডেমোক্রেসির (গণতন্ত্রের) একটা বিউটি (সৌন্দর্য) আছে। তারা অন্য দেশের অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে না। অন্যান্য দেশ এ বিষয়ে খুব দৌড়াদৌড়ি করে। অনেক দেশ ছোটাছুটি করে। ইন্ডিয়া এইগুলো করে না।’

আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে মোদি বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের কবল থেকে দেশকে স্বাধীন করতে মুক্তিযোদ্ধাদের অবদানের কথা তুলে ধরে তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

 

বঙ্গবন্ধু এবং তার কন্যা শেখ হাসিনার কথা উল্লেখ করে মোদি আওয়ামী লীগ নেতাদের বলেন, ‘আপনাদের নিজের দেশের দিকে তাকিয়ে দেখুন। আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের সব কটি সূচকে আপনারা এখন পাকিস্তানের চেয়ে অনেক দূর এগিয়ে রয়েছেন।’

মিয়ানমারের বাস্তুচ্যূত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে বাংলাদেশে আশ্রয় দেয়ার কথা তুলে ধরে মোদি বলেন, তার দেশ এই সমস্যার দ্রুত সমাধান চায়। বাংলাদেশের অবস্থানের প্রতি সমর্থনের কথাও জানান মোদি।

ভারত এবং বাংলাদেশের সম্পর্কে ‘কাঁটা’ হয়ে দেখা দেয়া তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তির বিষয়টি নিয়েও কথা বলেন মোদি। বলেন, তিনি এই চুক্তি সই করতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

বৈঠকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বাংলাদেশের জনগণের পক্ষ থেকে মোদিকে শুভেচ্ছা জানান।

বৈঠকে আওয়ামী লীগ নেতা পীযুষ কান্তি ভট্টাচার্য, মাহবুব উল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, ভারতে বাংলাদেশের হাইকশিনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

তিন দিনের সফর শেষে মঙ্গলবার আওয়ামী লীগ নেতাদের দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY