খেলাধূলা সংবাদ : বিশ্বের দ্রুততম হলেই কি ফুটবলার হওয়া যায়?‌ মনে মনে হয়ত এমনই একটা ধারনা ছিল। কিন্তু সে ধারনা জোর ধাক্কা খেয়েছে মাঠে নামতেই। উসাইন বোল্ট সে কথা স্বীকারও করে নিলেন। সাফ জানালেন, ‘‌পেশাদার ফুটবলের গতির সঙ্গে পাল্লা দিতে হিমশিম খাচ্ছি।’‌

এইমুহূর্তে অস্ট্রেলিয়ার সেন্ট্রাল কোস্ট মেরিনার্সে ট্রায়ালে রয়েছেন। দলের বাকি ফুটবলারদের সঙ্গে অনুশীলন করছেন। ওয়ার্ম আপ, জগিংয়ের পর বল নিয়ে ড্রিল করতে শুরু করেছেন। তবে পাসিং ঠিকঠাক করলেও, পেশাদার ফুটবলের সঙ্গে ঠিক তাল মেলাতে পারছেন না। ফুটবলে যে পরিমাণে ফিটনেস দরকার তাতেও ঘাটতি রয়েছে বোল্টের। যার ফলে ক্লান্ত হয়ে পড়ছেন। বোল্ট বলেছেন, ‘‌সবচেয়ে মুশকিল হল, একবার গতি বাড়িয়ে এগিয়ে যাওয়া, তারপর আবার পিছিয়ে আসা। আমি এভাবে দৌড়তে তো অভ্যস্ত ছিলাম না। তবে প্র‌্যাকটিস করছি। হাতে এখনও সময় আছে। পরিশ্রম করে যাব।’‌

অক্টোবরের শেষ দিকে মেরিনার্সের ২০১৮–১৯ মৌসুম শুরু। প্রাক মৌসুম প্রীতি ম্যাচ রয়েছে শুক্রবার। কোচ মাইক মুলভে বলেছেন, ‘‌মনে হচ্ছে, শুক্রবারের ম্যাচে বোল্টকে কয়েক মিনিটের জন্য হলেও মাঠে পাব। পরিবর্ত প্লেয়ার হিসেবে ও খেলতে পারে। বোল্ট এর আগে ফুটবল খেলেছে। এখন দরকার গতির সঙ্গে তাল মেলানো। মানিয়ে নিতে একটু সময় লাগবেই।’

‌কোচের এই ভরসার শব্দগুলো বোল্টকে আত্মবিশ্বাস জোগাচ্ছে। বলেছেন, ‘‌এই মুহূর্তে লক্ষ্য ফিট থাকা।‌’

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY