খেলাধূলা সংবাদ :   দুই বছর আগে ভুটানের কাছে ৩-১ গোলে হেরে বাংলাদেশ ফুটবলের কালো অধ্যায় শুরু হয়েছিল। সেখান থেকে আস্তে আস্তে উন্নতি ঘটাচ্ছে বাংলাদেশ। সদ্য শেষ হওয়া এশিয়ান গেমস ফুটবলে কাতার ও উত্তর কোরিয়ার মতো দলের সঙ্গে দারুণ ফুটবল খেলে লাল সবুজের জার্সিধারীরা।

সেই ধারাবাহিকা আপাতত বজায় থাকলো সাফ ফুটবলেও। মঙ্গলবার রাতে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভুটানকে ২-০ গোলে হারিয়ে শুভসূচনা করেছে স্বাগতিকরা। সেই সঙ্গে দুই বছর আগের সেই হারের বদলা নিয়ে নিয়েছে বাংলাদেশ। গোল দাতা তপু বর্মন ও সুফিল।

১-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে গিয়েছিল স্বাগতিকরা। বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে খেলার শুরুতেই নাটকীয় গোল পেয়ে যায় বাংলাদেশ। প্রথম মিনিটেই সৌভাগ্যের কর্নার লাভ করে স্বাগতিকরা। কর্নার কিকের পর ডি বক্সের মধ্যে ফরোয়ার্ড সাদ উদ্দিনকে ফাউল করেন ভুটানের এক ডিফেন্ডার। তাতে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি।

সুযোগটা নষ্ট করেননি তপু বর্মণ।স্পট কিক থেকে ঠাণ্ডা মাথায় গোল করে স্বাগতিকদের এগিয়ে নেন এই ডিফেন্ডার। শেষমেশ এই ব্যবধান ধরে রেখেই প্রথমার্ধের খেলা শেষ করে বাংলাদেশ।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই আবার আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠে স্বাগতিকরা।৪৮তম মিনিটে দলকে দ্বিতীয় গোল এনে দেন মাহবুবুর রহমান। ডান প্রান্ত দিয়ে দ্রুতগতিতে ভুটানের বক্সের ভেতর ঢুকে পড়ে ডান পায়ের জোড়লো ভলিতে বল জালে জড়িয়ে দেন তিনি। ২-০তে এগিয়ে যাবার পর কিছুটা রক্ষণাত্মক ফুটবল খেলে বাংলাদেশ। শেষমেশ খেলা শেষ হয় ওই ব্যবধানে।

বাংলাদেশ-ভুটান এবার দিয়ে পঞ্চমবার মুখোমুখি হয় সাফ ফুটবলে। আগের চারবারে বাংলাদেশের সাফল্যের পাল্লাই ভারি। ভুটানের বিপক্ষে লাল-সবুজ জার্সিধারীদের জয় চারটিতে, বাকি ম্যাচটি হয়েছে ড্র।

দুই বছর আগে এএফসি এশিয়ান কাপের প্লে অফে এই ভুটানের কাছে হেরেই নির্বাসনে চলে গিয়েছিল বাংলাদেশের ফুটবল। ভুটানের মাঠে ৩-১ হেরেছিল বাংলাদেশ।আন্তর্জাতিক ফুটবলে বাংলাদেশের শেষ জয়টা এই ভুটানের বিপক্ষেই ২০১৫ সাফে।

বাংলাদেশ একাদশ: শহীদুল আলম, ওয়ালি ফয়সাল, তপু বর্মণ, টুটুল হোসেন বাদশা, জামাল ভূঁইয়া, সাদ উদ্দিন, বিশ্বনাথ ঘোষ, আতিকুর রহমান, বিপলু আহমেদ, মাহবুবুর রহমান, মাসুক মিয়া জনি।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY