মো. আবু রায়হান, শেরপুর ঝিনাইগাতী প্রতিনিধি:
শেরপুর জেলার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ্য কৃষকরা ক্ষয়-ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে আগাম ফসল বোরো চাষের জন্য বোরো বীজ (চারা) বপন করতে ব্যস্ত সময় পার করছে। পাশাপাশি নানা জাতের রবি শস্য ও নানা জাতের শাক-সবজি চাষাবাদ করছে। বিগত বছরের দফায় দফায় বন্যায় বোরো ও আমন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এই ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে ব্যাপক ভাবে বোরো ও সবজি চাষ শুরু করে দিয়েছে। যাতে বিগত ক্ষয়-ক্ষতি কিছুটা হলেও কাটিয়ে উঠতে পারে এমন ভরসা নিয়ে কৃষকেরা মাঠে নেমেছে। শেরপুর জেলার ৫টি উপজেলার সিংহ ভাগ লোকই কৃষক ও প্রান্তিক চাষী। তাদের একমাত্র আয়ের পথ হলো নানা জাতের কৃষি ফসল। এই সমস্ত ফসল উৎপাদন করে নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে বাড়তি ফসল বাজারে বিক্রি করে কৃষকদের অন্যান্য চাহিদা পূর্ণ করে। বর্তমানে সবজির চড়া মূল্য দেখে আগে-ভাগেই অনেক কৃষক উঁচু জমিতে নানা জাতের সবজি চাষ করেছে। এতে সবজিও ভাল হয়েছে এবং বাজারে দামও ভাল। বর্তমানে কৃষকরা নানা জাতের সবজি বিক্রি করে অনেকটাই লাভবান হচ্ছে। শেরপুর জেলার সীমান্তবর্তী এলাকা গারোকোনা, সন্ধ্যাকুড়া, গোমড়া, হলদিগ্রাম, ফাকরাবাদ, ভারুয়া, বনগাঁও, জিগাতলা, তিনআনী, রাংটিয়া, বাকাকুড়া, আয়নাপুর, পানবর, গুরুচরণ দুধনই, ধানশাইলসহ আরও বিভিন্ন এলাকায় কড়লা, জিঙ্গা, লাউ, বড়বটি, ফুলকপি, বাঁধাকপি, আলু, বেগুন, পোটল, মূলা, গাঙ্গা, লাল শাক, পেঁপে, দুধকুশি, চাল কুমড়া, মিষ্টি লাউ ব্যাপক ভাবে চাষাবাষ করেছে। ফলন ও বাজার ভাল হওয়ায় কৃষকরা বেজায় খুশি। উল্লেখ্য, গত বছরের চেয়ে এ বছর বোরো ও সবজি চাষের লক্ষ্যমাত্রা বেশী বলে জানান, কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল আউয়াল।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY