বিনোদন সংবাদ : একসময়ের জনপ্রিয় দাপুটে অভিনেত্রী, যার বিচরণ ছিলো ছোট ও বড় পর্দা দুটোতেই, সেই ইপসিতা শবনম শ্রাবন্তীর সুখের সংসারটি আজ ভাঙ্গার পথে। বিয়ের পর স্বামীর সাথে পাড়ি জমান স্বপ্নের দেশ আমেরিকায়। সুখের সংসার পাতেন সেখানেই। এরপর কোনো পর্দাতেই অভিনয় করতে দেখা যায়নি তাকে। সংসার জীবনে দুটো কন্যা সন্তানের জননী হয়েছেন তিনি। তবে কিছুদিন ধরে তার সংসারে কালো মেঘের ঘনঘটা। স্বামীর সাথে তার বনিবনা হচ্ছেনা। সম্প্রতি স্বামীর পক্ষ থেকে ডিভোর্স নোটিশ পেয়েছেন ।

জানা গেছে, গত ৭ মে তাকে তালাকের নোটিশ পাঠিয়েছেন তার স্বামী মোহাম্মদ খোরশেদ আলম। জানা গেছে, বগুড়া সদরের কালীতলার শিববাড়ি সড়কে শ্রাবন্তীর বাবার বাসার ঠিকানায় এই নোটিশ পাঠানো হয়।

শ্রাবন্তী দীর্ঘদিন যাবৎ যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী। গত ২৫ জুন তিনি দেশে ফিরেছেন। এখন আছেন বগুড়ায়। জানালেন, যুক্তরাষ্ট্রে থাকতেই স্বামীর পাঠানো তালাকের এই নোটিশের খবর পেয়েছেন শ্রাবন্তী। এরপর দ্রুত দুই মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে দেশে এসেছেন। তাদের বড় মেয়ে রাবিয়াহ আলমের বয়স সাত আর ছোট মেয়ে আরিশা আলমের সাড়ে তিন বছর।

এরই মধ্যে গত ২৬ মে রাজধানীর খিলগাঁও থানায় তিনি স্বামীর বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন আর যৌতুকের মামলাও করেছেন। শ্রাবন্তী এ বিষয়ে কথা বলেছেন গণমাধ্যমের সামনে। এবার এ বিষয়ে মুখ খুললেন শ্রাবন্তীর স্বামী মোহাম্মদ খোরশেদ আলম।

রোববার দুপুরে জাগো নিউজকে বলেন, ‘ডিভোর্স পেপার পাঠিয়েছি এটি সত্যি। তবে আমার বিরুদ্ধে কোনো মামলা করেছে কি-না এ বিষয়ে আমার কিছু জানা নেই। আমাকে কিছু বলেওনি।’

ডিভোর্সের সিদ্ধান্তটি আরও ভালো করে বিবেচনা করে দেখবেন কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘দেখুন, একসঙ্গে থাকার জন্য পারিবারিকভাবে আমরা অনেক চেষ্টা করেছি। সবরকম চেষ্টা করেই আমরা ব্যর্থ। এরপর ডিভোর্সের এই সিদ্ধান্তেও পারিবারিকভাবেই এসেছে। সুতারাং বিবেচনা করার আর কিছু নেই।’

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY