খেলাধূলা সংবাদ :  ডারবান টেস্টের শেষ দিন অস্ট্রেলিয়ার জিততে প্রয়োজন ছিল এক উইকেট। সোমবার সেই উইকেটটি সকাল সকাল নিয়ে নিলেন জস হ্যাজলেউড। ফলে, ১১৮ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ল অস্ট্রেলিয়া। এই জয়ের মাধ্যমে চার ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল অজিরা। পোর্ট এলিজাবেথে দ্বিতীয় ম্যাচটি শুরু হবে আগামী ৯ মার্চ।

রবিবার অস্ট্রেলিয়ার দেয়া ৪১৭ রানের জয়ের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে নয় উইকেট হারিয়ে ২৯৩ রান সংগ্রহ করে দিনের খেলা শেষ করেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। দিন শেষে কুইন্টন ডি কক ৮১ রান করে ও মরনি মরকেল শূন্য রান করে অপরাজিত ছিলেন। গতকালের স্কোরের সাথে আজ মাত্র পাঁচ রান সংগ্রহ করে অলআউট হয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ব্যক্তিগত ৮৩ রানে জস হ্যাজলেউডের বলে এলবিডব্লিউ হন কুইন্টন ডি কক। তিন রান করে অপরাজিত থাকেন মরনি মরকেল। অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে মিচেল স্টার্ক চারটি, জস হ্যাজলেউড ৩টি, প্যাট কামিন্স ১টি ও মিচেল মার্শ ১টি করে উইকেট নেন।

গতকাল দক্ষিণ আফ্রিকা ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই উইকেট হারাতে থাকে। দলীয় ১৩৬ রানে তাদের পঞ্চম উইকেটের পতন হয়। এরপর এইডেন মার্করাম ও কুইন্টন ডি কক ১৪৭ রানের পার্টনারশিপ গড়েন। ১৪৩ রান সংগ্রহ করে আউট হন এইডেন মার্করাম। এরপর আর কেউ হাল ধরতে পারেননি।

গত বৃহস্পতিবার ম্যাচের প্রথম দিন টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় অস্ট্রেলিয়া। ওইদিন পাঁচ উইকেট হারিয়ে ২২৫ রান সংগ্রহ করে দিনের খেলা শেষ করে অজিরা। শুক্রবার আবার তারা ব্যাটিংয়ে নামে। ৩৫১ রানে শেষ হয় তাদের প্রথম ইনিংস।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৯৬ রান করেন মিচেল মার্শ। ৫৬ রান করেন স্টিভেন স্মিথ। ৫১ রান করেন ডেভিড ওয়ার্নার। দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে কেশভ মহারাজ ৫টি উইকেট নেন। তিনটি উইকেট নেন ভারনন ফিল্যান্ডার। দুইটি উইকেট নেন কাগিসো রাবাদা।

পরে দক্ষিণ আফ্রিকা ব্যাট করতে নেমে ১৬২ রান সংগ্রহ করে অলআউট হয়ে যায়। এরপরই দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ হয়। স্বাগতিকদের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭১ রান করে অপরাজিত থাকেন এবি ডি ভিলিয়ার্স। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩২ রান করেন এইডেন মার্করাম। অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে মিচেল স্টার্ক ৫টি, জস হ্যাজলেউড ১টি, নাথান লায়ন ৩টি ও প্যাট কামিন্স ১টি করে উইকেট নেন।

শনিবার ম্যাচের তৃতীয় দিন অস্ট্রেলিয়া তাদের দ্বিতীয় ইনিংসের ব্যাট করতে নামে। নয় উইকেট হারিয়ে ২১৩ রান সংগ্রহ করে দিনের খেলা শেষ করে তারা। রবিবার সকালে অজিরা আবার ব্যাটিংয়ে নামে। ২২৭ রান সংগ্রহ করে অলআউট হয়ে যায় তারা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫৩ রান করেন ক্যামেরন ব্যানক্রফট। দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে মরনি মরকেল ৩টি, কেশভ মহারাজ ৪টি, কাগিসো রাবাদা ২টি ও ডেন এলগার ১টি করে উইকেট নেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ফল: ১১৮ রানে জয়ী অস্ট্রেলিয়া।

অস্ট্রেলিয়া প্রথম ইনিংস: ৩৫১ (১১০.৪ ওভার)

(ক্যামেরন ব্যানক্রফট ৫, ডেভিড ওয়ার্নার ৫১, উসমান খাজা ১৪, স্টিভেন স্মিথ ৫৬, শন মার্শ ৪০, মিচেল মার্শ ৯৬, টিম পেইনে ২৫, প্যাট কামিন্স ৩, মিচেল স্টার্ক ৩৫, নাথান লায়ন ১২, জস হ্যাজলেউড ২*; মরনি মরকেল ০/৭৫, ভারনন ফিল্যান্ডার ৩/৫৯, কেশভ মহারাজ ৫/১২৩, কাগিসো রাবাদা ২/৭৪, এইডেন মার্করাম ০/২, থিউনিস ডি ব্রুইন ০/৬)।

দক্ষিণ আফ্রিকা প্রথম ইনিংস: ১৬২ (৫১.৪ ওভার)

(ডেন এলগার ৭, এইডেন মার্করাম ৩২, হাশিম আমলা ০, এবি ডি ভিলিয়ার্স ৭১*, ফাফ ডু প্লেসিস ১৫, থিউনিস ডি ব্রুইন ৬, কুইন্টন ডি কক ২০, ভারনন ফিল্যান্ডার ৮, কেশভ মহারাজ ০, কাগিসো রাবাদা ৩, মরনি মরকেল ০; মিচেল স্টার্ক ৫/৩৪, জস হ্যাজলেউড ১/৩১, নাথান লায়ন ৩/৫০, প্যাট কামিন্স ১/৪৭)।

অস্ট্রেলিয়া দ্বিতীয় ইনিংস: ২২৭ (৭৪.৪ ওভার)

(ক্যামেরন ব্যানক্রফট ৫৩, ডেভিড ওয়ার্নার ২৮, উসমান খাজা ৬, স্টিভেন স্মিথ ৩৮, শন মার্শ ৩৩, মিচেল মার্শ ৬, টিম পেইনে ১৪, প্যাট কামিন্স ২৬, মিচেল স্টার্ক ৭, নাথান লায়ন ২, জস হ্যাজলেউড ৯*; মরনি মরকেল ৩/৪৭, ভারনন ফিল্যান্ডার ০/৩৫, কেশভ মহারাজ ৪/১০২, কাগিসো রাবাদা ২/২৮, ডেন এলগার ১/১০)।

দক্ষিণ আফ্রিকা দ্বিতীয় ইনিংস: ২৯৮ (৯২.৪ ওভার)

(এইডেন মার্করাম ১৪৩, ডেন এলগার ৯, হাশিম আমলা ৮, এবি ডি ভিলিয়ার্স ০, ফাফ ডু প্লেসিস ৪, থিউনিস ডি ব্রুইন ৩৬, কুইন্টন ডি কক ৮৩, ভারনন ফিল্যান্ডার ৬, কেশভ মহারাজ ০, কাগিসো রাবাদা ০, মরনি মরকেল ৩*; মিচেল স্টার্ক ৪/৭৫, জস হ্যাজলেউড ৩/৬১, নাথান লায়ন ০/৮৬, প্যাট কামিন্স ১/৪৭, মিচেল মার্শ ১/২১, স্টিভেন স্মিথ ০/৩)।

প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচ: মিচেল স্টার্ক (অস্ট্রেলিয়া)।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY